শুভেচ্ছাসাধারণ জ্ঞানতথ্যভিডিও

সূর্য অর্ঘ্য: সূর্যদেবকে জল নিবেদনের উপকারিতা

- বিজ্ঞাপন-

আপনি নিশ্চয়ই শুনেছেন যে সকালে সূর্যকে জল নিবেদন করলে উপকার পাওয়া যায়। সূর্যকে প্রতিদিন জল নিবেদনের উল্লেখ বেদ ও পুরাণেও পাওয়া যায়। সমস্ত দেবদেবীদের মধ্যে, সূর্য এবং চাঁদ পৃথিবীতে দৃশ্যমান একমাত্র দুটি দেবতা। সূর্য থেকে সারা পৃথিবীতে আলো আসে। সূর্যের আলোর কারণেই পৃথিবীতে জীবন সম্ভব।

হিন্দু ধর্মগ্রন্থ অনুসারে সূর্যের গুরুত্ব

হিন্দু শাস্ত্রে, সূর্যকে পূজনীয় বলা হয়েছে এবং আমাদের দেশে অসংখ্য উৎসবে পূজা করা হয়। ভগবান রাম স্বয়ং সূর্য দেবতার পূজা করতেন এবং তাকে জল দিয়ে অর্ঘ্য দিতেন। মহাভারত যুগে পাণ্ডবদের মাতা কুন্তী ছিলেন সূর্যের ভক্ত। সূর্যদেবকে মহান দাতা মনে করা হয়।

এছাড়াও পড়ুন: মিথুন সংক্রান্তি: তাৎপর্য, আচার-অনুষ্ঠান, উদযাপন, ইতিহাস এবং সম্পূর্ণ তথ্য

সূর্যকে জল নিবেদনের উপকারিতা

আমরা যদি ধর্মীয় এবং জ্যোতিষের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখি, তাহলে সূর্য নিয়মিত আত্মশুদ্ধি ও শক্তি লাভ করে। সূর্যকে জল নিবেদন করলে স্বাস্থ্য উপকার হয়।

আমরা নিয়মিত উদীয়মান সূর্যকে জল নিবেদন করলে তা মানুষের চোখকে সুস্থ রাখে। তাই পানি দেওয়ার সময় পানির পাত্রটি মাথার সামনে রেখে পানি পড়া দেখতে হবে। এটি চোখের ত্রুটি সারাতেও সহায়ক।

জ্যোতিষশাস্ত্রের দৃষ্টিকোণ থেকে যদি দেখা যায়, সূর্যকে নিয়মিত জল দিলে জন্মকুণ্ডলীতে সূর্যের অবস্থান দৃঢ় হয় এবং একজন ব্যক্তি তার জীবনের প্রায় সব ক্ষেত্রেই সাফল্য লাভ করেন।

সূর্য হৃৎপিণ্ডের সঙ্গেও সম্পর্কিত, তাই হৃদপিণ্ডকে সুস্থ রাখতে সূর্যকে জল দেওয়া খুবই শুভ বলে মনে করা হয়। আর এটা বিশ্বাস করা হয় যে সূর্যের রশ্মি আমাদের শরীরে পড়লে শরীর ভিটামিন ডি পায়, যা আমাদের হাড়কে মজবুত করে।

জ্যোতিষশাস্ত্রে সূর্যকে রাজা, রাষ্ট্রীয় ক্ষেত্র, পিতা এবং চাকরিতে কর্মকর্তার কারক হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। তাই নিয়মিত সূর্যকে জল অর্পণ করলে প্রতিটি মানুষের কর্মে উন্নতি ও উপকার হয়। এটি একজনের আত্মবিশ্বাসকে উচ্চ রাখে।

ইনস্টাগ্রামে আমাদের অনুসরণ করুন (@uniquenewsonline) এবং ফেসবুক (@uniquenewswebsite) বিনামূল্যে জন্য নিয়মিত সংবাদ আপডেট পেতে

সম্পরকিত প্রবন্ধ